শীত মানে পিঠা

pitha

Winter pithaআমাদের দেশে শীত মৌসুম মানেই যেন পিঠাপুলি, ক্ষির-পায়েস খাওয়ার ধুম। শীত এলেই মনে পড়ে যায় শীতের পিঠার কথা। শীতের মৌসুমে নানান স্বাদের পিঠা ছাড়া যেন বাঙালির রসনা তৃপ্তি পূর্ণ হয় না। শহুরে জীবনযাপনে অনেকেই দোকান থেকে পিঠা কিনে খায়। তবে আপনি চাইলে ঘরেও বানাতে পারেন নানান স্বাদের হরেক রকম পিঠা। তাই যারা বাসায় পিঠা বানাতে চান তাদের জন্য রইল পিঠা বানানোর সহজ কিছু রেসিপি।

ভাপাপিঠাঃ

উপকরণ: সিদ্ধ চালের গুঁড়া ১৫ কাপ, গুড় আধা কেজি, নারিকেল ঝুড়া ২ কাপ, লবণ স্বাদমতো।

পদ্ধতি: সিদ্ধ চালের গুঁড়া মিহি চালনিতে চেলে নিন। এতে লবণ মিশিয়ে নিন। চালের গুঁড়া ভেজা ভেজা থাকবে। তবে খেয়াল রাখবেন যেন দলা না বাঁধে। এই ভেজা গুঁড়া আবার চেলে নিন। পিঠার জন্য একটা বড় বাটিতে চালের গুঁড়া অল্প করে ছড়িয়ে দিন। মাঝে কিছু নারকেল আর গুড় ছড়িয়ে দিয়ে এর উপর আবার চালের গুঁড়া দিন। বাটি ভরে গেলে হাত দিয়ে সমান করুন।

একটি বড় হাঁড়িতে পানি গরম বসিয়ে হাঁড়ির মুখে পাতলা কাপড় বেঁধে দিন। পানি ফুটে পাতলা কাপড় দিয়ে বাষ্প বের হতে থাকলে এর উপর বাটি উল্টিয়ে কাপড়সহ পিঠা বসান। বাটি তুলে ফেলুন। কাপড় দিয়ে পিঠা ঢেকে উপরে ঢাকনা দিন। ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর নামিয়ে আনুন। এরপর আলতো করে একটি থালায় কাপড় উল্টিয়ে থালায় রাখুন।

চিতইপিঠাঃ

উপকরণ: চালের গুড়া ২ কাপ, পানি ও লবণ পরিমাণ মতো।

পদ্ধতি: চালের গুঁড়ায় পানি মিশিয়ে তরল মিশ্রণ তৈরি করুন। খেয়াল রাখবেন যেন বেশি পাতলা বা বেশি ঘন না হয়। তবে পাতলা গোলা করলে পিঠা নরম হয়। যে পাত্রে পিঠা ভাজবেন সেটাতে সামান্য তেল মাখান। এখন পাত্রটি অনেক গরম করে ২ টেবিল চামচ চালগোলা দিয়ে ঢেকে দিন। ঢাকনার চারপাশে পানি ছিটিয়ে দিন। ৩-৪ মিনিট পর পিঠা তুলে ফেলুন।বিভিন্ন রকম ভর্তা, ভুনা মাংস দিয়ে এই পিঠা খেতে বেশ মজা।

দুধচিতইঃ

পদ্ধতি: ১ লিটার দুধ জ্বাল দিয়ে সামান্য ঘন করুন। আলাদা করে দেড়কাপ পানিতে ২ কাপ গুড় জ্বাল দিয়ে গুড়ের সিরা তৈরি করুন। সিরায় পিঠা ছেড়ে চুলায় দিয়ে কিছুক্ষণ জ্বাল দিন। ঠাণ্ডা হলে দুধ দিয়ে একরাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে এই পিঠা খেতে মজা। তবে বিকাল, সন্ধ্যায় খেতে চাইলে দুধে ভেজানো চিতই পিঠা ফ্রিজে রেখে দিতে পারেন।

বিবিখানা পিঠাঃ

উপকরণ: পোলাওয়ের চালের গুঁড়া ১ কাপ, নারিকেল কোরানো ১ কাপ, ময়দা ২ টেবিল-চামচ, খেজুরের গুড় বা চিনি ১ কাপ, ডিম ২টি, ঘন দুধ ১ কাপ (২ লিটার দুধ জ্বাল দিয়ে ঘন করে নেওয়া), ঘি আধা কাপ, এলাচের গুঁড়া আধা চা-চামচ।

পদ্ধতি: পোলাওয়ের চালের গুঁড়া শুকনো কাঠখোলায় টেলে নিন। ডিম ফেটিয়ে ঘি, দুধ ও চিনি দিয়ে ফোটাতে থাকুন। এবার অন্যান্য উপকরণ দিয়ে খুব ভালোভাবে মাখুন। ওভেন প্রুফ বাটিতে তেল মেখে মিশ্রণ ঢালতে হবে। ইলেকট্রিক ওভেনে প্রিহিট করে ১৬০ ডিগ্রি তাপে ৩৫-৪০ মিনিট বেক করুন। চুলায় বেক করতে হলে মাঝারি আঁচে তাওয়ায় বালু দিয়ে ৪০-৪৫ মিনিট রান্না করতে হবে।

নকশি পিঠাঃ

উপকরণ: আধা কাপ সিদ্ধ চাল, আধা কাপ ভাজা মুগডাল, ১ টেবিল-চামচ ময়দা, বেকিং পাউডার ১ চিমটি, ২ টেবিল-চামচ গুঁড়া চিনি, ১ টেবিল চামচ তেল, ১টি ডিম, সিরার জন্য চিনি ২ কাপ, পানি আধা কাপ।

পদ্ধতি: আধা কাপ পানি দিয়ে ২ কাপ চিনির ঘন সিরা করুন। সিদ্ধ চাল ভিজিয়ে রেখে গুঁড়া করুন। মুগ ডাল অল্প পানিতে সিদ্ধ করে বেটে নিন। ময়দার সঙ্গে বেকিং পাউডার মেশান। গুঁড়া চিনি ও তেল এক সঙ্গে ফেটে চালের গুঁড়া, ডাল ও ময়দা দিয়ে মেখে খামির করুন। প্রয়োজন হলে সামান্য পানি দিয়ে মাখবেন। খামির ৩ ভাগ করে ৪ মিলিমিটার পুরু রুটি বেলুন। ছুরি দিয়ে বিভিন্ন আকারের পিঠা কাটুন। খেজুরকাঁটা বা চিকন কাঁটা দিয়ে পিঠার ওপরে বা কিনারায় কিরিকিরি দাগ টেনে নকশা করুন।

পিঠা ডুবো তেলে ভেজে ২-৩ মিনিট গরম সিরায় ডুবিয়ে রেখে তারপর তুলে নিন।

কেএফ/এএস