প্রবাসীদের এক সূতায় গাঁথতে তথ্য ভান্ডার হচ্ছে

US_Italy_Saudi_MYবিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশের কত জন মানুষ থাকে তার কোনো তথ্য পরিসংখ্যান নেই সরকারের কোনো দপ্তরে। বিদেশ প্রতিবছর কত মানুষ কাজের সন্ধানে বিদেশ যাচ্ছে তার পরিসংখ্যান থাকলেও কতজন ফিরে আসছে তা কেউ জানে না।

আবার বিদেশ-বিভুঁইয়ে থাকা প্রবাসীরাও জানে না তার শহরটিতে কতজন স্বদেশী আছে, কে কে আছে, তাদের ঠিকানাই-বা কী। তবে চিত্র বদলে যাবে শিগগীরই। বিদেশে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা কয়েক লাখ প্রবাসীকে এক সূতায় গাঁথতে তথ্য ভান্ডার (ডাটা বেজ) গড়ে তুলবে বাংলাদেশ ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, ২৩ নভেম্বর বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান এ ডাটাবেজ উদ্বোধন করবেন। এ ডাটাবেজে প্রবাসিরা ঢুকে নিজে নিজেই তাদের সব তথ্য অন্তর্ভূক্ত করতে পারবেন।

সারা দেশে ছড়িয়ে থাকা এক কোটিরও বেশি প্রবাসিরা এ ডাটাবেজ দেখতে ও একে অপর সম্পর্কে খোঁজ নিতে পারবেন। সঞ্চয়পত্র, বন্ডে প্রবাসিদের বিনিয়োগ বাড়াতে এসব সম্পর্কে তাদের প্রতিনিয়ত তথ্যও জানানো হবে এ ডাটাবেজের মাধ্যমে। প্রবাসিরা চাইলে কোন ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এখানে অভিযোগ করতে পারবেন। মোটকথা সব সময় প্রবাসিদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করার জন্যই এ ডাটাবেজ তৈরি করা হচ্ছে বলে সূত্রটি জানিয়েছে।

সূত্রটি আরও জানায়, সাম্প্রতিক সময়ে আর্থিক খাতে ঘটে যাওয়া কিছু ঘটনা প্রবাসিদের কাছে বাংলাদেশ সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণা তৈরি করেছে। এর মধ্যে হলমার্ক, বিসমিল্লাহ গ্রুপ, অন্যতম। তাছাড়া দূতাবাসগুলোতেও ভাল সেবা না পাওয়ায় ক্ষিপ্ত আছে প্রবাসিরা। এর মধ্যে সাম্প্রতিক সময়ে যুক্ত হয়েছে প্রবাসিদের রেমিটেন্স কম আসা। এসব কারণে এ ডাটাবেজ তৈরির উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এর মাধ্যমে তাদের কাছে প্রতিনিয়ত বাংলাদেশ সম্পর্কে ইতিবাচক তথ্য প্রচার করা হবে।

এ সম্পর্কে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক ম. মাহফুজুর রহমান অর্থসূচককে বলেন, সারা বিশ্বে এক কোটিরও বেশি প্রবাসি রয়েছে। কিন্তু কারোর সাথে কারোর কোন যোগাযোগ নেই। এমনকি সরকারের কাছেও এ ধরণের কোন তথ্য নেই। তাই প্রবাসিদের সম্পর্কে জানতে, তাদের কর্মকান্ড ও দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে এ ডাটাবেজ তৈরি করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে বাংলাদেশের কোন কোন ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করলে লাভবান হওয়া যাবে তা জানানো হবে। বাংলাদেশের কোন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে তাদের কোন অভিযোগ থাকলে তা তারা এর মাধ্যমে আমাদের জানাতে পারবেন। আমরা অভিযোগের ভিত্তিতে তা সমাধানের চেষ্টাও করবো বলে জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, প্রবাসিরা তাদের দেশে অথবা অন্যকোন দেশে বেড়াতে গিয়ে কোন সমস্যায় পড়লে তাৎক্ষনিকভাবে ওই এলাকায় থাকা বাংলাদেশীদের কাছে সাহায্য চাইতে পারবেন। আর তারা ওই এলাকায় থাকা বাংলাদেশীদের তথ্য পাবেন এই ডাটাবেজের মাধ্যমে। এর ফলে প্রবাসিদের মধ্যেও সম্পর্ক আরও জোরদার হবে বলে মনে করেন তিনি।