দিনাজপুরে নির্বাচনে ভোট দেওয়ায় হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িতে আগুন-লুটপাট

Dinajpur

Dinajpur১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দেওয়ায় দিনাজপুর সদর উপজেলার পল্লীঞ্চলে হিন্দু সম্প্রদায়ের অর্ধশতাধিক বাড়িঘর ও দোকানপাটে অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর ও লুটপাট করেছে দুর্বৃত্তরা। দুর্বৃত্তদের হামলায় আহত হয়েছে কমপক্ষে ১৫ জন।

এলাকাবাসী জানায়, এই ঘটনাটি পুলিশকে অবহিত করা হলেও পুলিশ কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি । এ ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে ওই এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন বাড়ি ঘর ছেড়ে অন্যত্র নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যাচ্ছে।

জানা যায়, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন এগিয়ে আসলে দিনাজপুর সদর উপজেলার কর্ণাই গ্রামের হিন্দুদেরকে ভোট না দেওয়ার জন্য হুমকি দিয়ে আসছিল নির্বাচন বিরোধীরা।

গত রোববার ভোটের দিন বিকেলে ভোট গণনা শেষে ওই এলাকায় ভোট দিতে যাওয়া হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের উপর প্রায় ৫ শতাধিক লোকজন দেশীয় অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে হামলা করে এবং এই হামলা চলতে থাকে গভীর রাত পর্যন্ত।

জানা যায়, কর্ণাই এলাকার সাহাপাড়া, প্রিতমপাড়া, প্রফুল্লপাড়া, তেলীপাড়া ও অজয়পাড়ার হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের বাড়িঘরে হামলা, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট করে নির্বাচন বিরোধীরা। এ সময় তাদের আক্রমনের শিকার হয়ে আহত হয় প্রায় ১৫ জন। আহত দিপন কুমার রায়, থেলু, দ্বিজেন, শিবু রায়, রাজকুমার রায়সহ বিভিন্ন হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন জানায়, তাদের বাড়িঘর আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয় এবং বাড়ির  মালামাল লুট করে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা।

আজ সোমবার সকালে দিনাজপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ইকবালুর রহিম, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ-সম্পাদক পরিমল চক্রবর্তী তপন, এএসপি আবু তারেক, ওসি আলতাফ হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা বিশ্বজিৎ ঘোষ কাঞ্চনসহ বিভিন্ন ব্যক্তিবর্গ এলাকা পরিদর্শন করেন।

ওসি আলতাফ হোসেন বলেন,  এই হামলা যারা চালিয়েছে ইতোমধ্যে পুলিশ তাদেরকে সনাক্ত করার প্রক্রিয়া অব্যাহত রেখেছে। পুলিশের অসহযোগিতার ব্যাপারে তিনি বলেন, আসলে গতকাল আমরা নির্বাচনী কাজে ব্যস্ত থাকায় সাথে সাথে ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্ভব হয় নি।

দিনাজপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ইকবালুর রহিম বলেন, এই ঘটনাটি ঘটানো হয়েছে নির্বাচনকে প্রতিহত করার জন্য। বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসী বাহিনী যতই শক্তিশালী হোক না কেন আমরা তাদেরকে আইনের আওতায় নিয়ে আসবো।