নির্বাচন নিয়ে আলোচনার কোনো সুযোগ নেই: মায়া

maya

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়াজনগণ আমাদের ভোট দিয়েছে আমরা তাদের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করতে পারি না। তাই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে বিএনপির সাথে আলোচনার কোনো সুযোগ নেই। কেবলমাত্র স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব নিয়েই তাদের সাথে আলোচনা হতে পারে।

সোমবার বেলা ১১টায় বঙ্গবন্ধু এভিনিউ’র দলীয় কার্যালয়ে আওয়ামী সমর্থক জোট আয়োজিত এক মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া।

এ সময় মায়া বলেন, সংবিধান-গণতন্ত্র ও আলোচনা একসাথে চলতে পারে না। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার ধারাবাহিকতা রক্ষার্থে সাংবিধানিক পন্থায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং আমরা নির্বাচিত হয়েছি। তাই সংবিধান ও গণতন্ত্র সমুন্নত রাখার দায়িত্ব আমাদের।

হরতালের মধ্যেও গাড়ি চলাচল স্বাভাবিক উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলার মানুষ বিএনপি ও তাদের কর্মসূচিকে প্রত্যাখ্যান করেছে। তাই তাদের ভোট বর্জনের আহ্বান উপেক্ষা করে জনগণ বিপুল উৎসাহে ভোটকেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছে।

প্রধান বক্তা সাবেক বন ও পরিবেশ মন্ত্রী ড. হাসান মাহমুদ বলেন, বিএনপির নাশকতার প্রচেষ্টা প্রতিহত করে জনগণের ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে সর্বদলীয় সরকারের অধীনে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তপূর্ণ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

তিনি বলেন, নব নির্বাচিত সরকারের প্রথম ও প্রধান দায়িত্ব হবে নৈরাজ্য সৃষ্টিকারিদের দমন এবং উৎপাটন করা।

নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, সন্ত্রাস, নাশকতা ও নৈরাজ্য সত্ত্বেও ব্যপক ভোটার উপস্থিতি প্রমাণ করেছে বিরোধী দলের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি সম্পূর্ণ অযৌক্তিক।

আওয়ামী সমর্থক জোটের সভাপতি ও মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আব্দুল হক সবুজের সভাপতিত্বে এ সময় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফয়েজ উদ্দিন মিয়া, মুকুল চৌধুরী, সাংগঠনিক-সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ প্রমুখ।

এসএসআর