২০১৩ সালের প্রযুক্তির বাজারে সাত ব্যর্থতা

1. iphone 5cশুরুটা হয়েছিল আগুন দিয়ে। এরপর নিজের প্রয়োজনে এবং খেয়ালের বশে মানুষ একের পর এক প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেই চলেছে। কিন্তু মানুষের কল্যাণে কিংবা মানুষের প্রয়োজনে প্রযুক্তির দিন আর নেই। এই আধুনিক সময়ে প্রযুক্তি মূল্যায়িত হয় টাকার অংকে। লাভ-ক্ষতির হিসেবে ২০১৩ সালের প্রযুক্তি বাজারের সাত ব্যর্থতা উপস্থাপন করা হল অর্থসূচকের পাঠকদের সামনেঃ
১) আই ফোন ৫-সিঃ গত ৫ বছর ধরে অ্যাপলের সব পণ্যই ক্রেতারা হটকেকের মত লুফে নিয়েছে। কিন্তু অপেক্ষাকৃত নিম্ন আয়ের ক্রেতাদের জন্য তৈরি আই ফোন ৫-সি অ্যাপলের ব্যর্থ প্রচেষ্টার একটি। ক্রেতাদের অভিযোগ, এই ফোনে প্লাস্টিক বডি ছাড়া আর কোন বিশেষত্ব নেই।

 

2. galaxy s4২) স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৪ঃ অ্যাপলের মত বর্তমান প্রযুক্তির বাজারের অন্যতম আলোচিত নাম স্যামসাং। কিন্তু সব আশার গুড়ে বালি দিয়ে গ্যালাক্সি সিরিজের এস৪ কোম্পানিটির প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ হয়।

 

 

 

 

 

3. twitter music৩) টুইটার মিউজিকঃ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারের এই মিউজিক অ্যাপ সংগীতপ্রেমীদের মাঝে সাড়া ফেলতে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়। বাজারে ছাড়ার ছয় মাস পরেই এই অ্যাপ প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয় টুইটার।

 

 

 

 

4. samsung galaxy gear৪) স্যামসাং গ্যালাক্সি গিয়ারঃ হাত-ঘড়ির বাজারে গ্যালাক্সি গিয়ারের মাধ্যমে আলোড়ন তুলতে চেয়েছিল স্যামসাং। কিন্ত ফোন এবং ঘড়ির এই হাইব্রিড সংস্করণ আলোড়ন দূরের কথা বাজারই তৈরি করতেপারেনি।

 
5. blackberry৫) ব্ল্যাকবেরিঃ সাবেক এই মোবাইল জায়ান্ট স্মার্টফোনের বাজার দখলে পুরোপুরি ব্যর্থ। ব্ল্যাকবেরি ১০ অপারেটিং সিস্টেম সমর্থিত ফোন দ্বারা বাজার পুনঃ দখলের পরিকল্পনা করা হলেও সেই প্রচেষ্টাও মাঠে মারা যায়।

 
6. nokia৬) নকিয়াঃ স্মার্টফোনের বাজারের আরেক ব্যর্থ নাম নকিয়া। লাভের মুখ দেখতে ব্যর্থ হওয়ায় কোম্পানিটি এক সময় কিনে নেয় মাইক্রোসফট। এখনও পর্যন্ত নকিয়া মোবাইলের বাজারে বিস্মৃত এক ব্রান্ড।

 

 
7. facebook home৭) ফেসবুক হোমঃ এন্ড্রয়ড ফোনকে ফেসবুকময় করে তোলার লক্ষ্যে ফেসবুক হোম বাজারে ছাড়া হয়। কিন্তু ১২০ কোটির ফেসবুক ব্যবহারকারীদের মধ্যে মাত্র ৫০ লাখ এই অ্যাপ ডাউনলোড করেন।