রংপুরের শতাধিক কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ স্থগিত

DSCF2113রংপুর ৩, ৪ ও ৬ আসনের ৪৭১ টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে শতাধিক ভোটকেন্দ্রে ভোট গ্রহণ বন্ধ আছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। তবে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা দাবি করেছেন মোট ৪৫টি ভোট কেন্দ্রে নির্বাচন বন্ধ আছে।

রংপুর-৪ (পীরগাছা-কাউনিয়া) আসনে কেন্দ্র সংখ্যা ১৬০টি। এর মধ্যে পীরগাছায় ৯০টি এবং কাউনিয়ায় ৭০টি। শনিবার রাত থেকে রোববার দুপুর পর্যন্ত আঠারো দলীয় জোট নেতাকর্মীদের প্রতিরোধ এবং ব্যালটবাক্স ছিনিয়ে নেওয়া, আগুন ধরিয়ে দেওয়ায় প্রায় ৮১টি ভোটকেন্দ্রে ভোট গ্রহণ বন্ধ রয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। এর মধ্যে ছাওলা, তাম্মুলপুর, নেকমামুদ ইউনিয়নের কোনো কেন্দ্রেই ভোট হচ্ছে না।

এদিকে এই আসনের কাউনিয়া উপজেলার ৭০টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৫টিতে ভোট গ্রহণ বন্ধ আছে। এর মধ্যে  টেপামধুপুর চরগোনাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গোনাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,রয়েছে। এসব কেন্দ্রেআনসার প্রিজাইডিং অফিসারদের মারধর করে ব্যালট ছিনিয়ে নিয়ে পুড়িয়ে দেয়। এ সময় সংঘর্ষ বাধে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে চরগোনাইয়ে পুলিশ ৮ রাউন্ড গুলি করে। এতে ৩ জন গুলিবিদ্ধ হন।

এদিকে রংপুর-৩ (সদর-গঙ্গাচড়া আংশিক) আসনের ২০৫ টি কেন্দ্রের মধ্যে হরকলি ফাজিল মাদ্রাসা, হরিদেবপুর হাইস্কুল, হরিদেবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মমিনপুরের কাটিহারা দাখিল মাদ্রাসা, কুর্শা বলরামপুর দাখিল মাদ্রাসা, কদমতলী দাখিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ বন্ধ আছে। এসব কেন্দ্রে আঠারো দলের নেতাকর্মীরা হামলা চালিয়ে আনসারসহ নির্বাচন সংশ্লিষ্টদের মারধরও করে। অন্যদিকে বেলা সাড়ে ১০ টায় দেওডোবা হাজিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুর্বৃত্তরা ককটেল ফাটালে সেখান থেকে ৩ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। অন্যদিকে রংপুর-৬ পীরগঞ্জ আসনের ১০৬টি কেন্দ্রের মধ্যে বিষ্ণপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঘোপিনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বড় আলমপুরের ধর্মদাসপুর প্রাইমারী স্কুল, চৈত্রকল ইউনিয়নের রাঙ্গামাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চতরা ইউনিয়নের গোবিন্দপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জলাডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আঠারো দলীয় জোট নেতাকর্মীরা আগুন দিয়ে দেওয়ায় সেখানেও ভোট গ্রহণ বন্ধ আছে। এছাড়াও বেলা সাড়ে ১১ টায় কাবিলপুর ইউনিয়সের গানজর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে লোকজনকে ধরে নিয়ে এসে ভোট দিতে বাধ্য করলে তাতে বাধা দেওয়া আঠারো দলীয় জোট নেতাকর্মীরা। এ সময় আওয়ামী লীগের সাথে আঠারো দলের সংঘর্ষ বাধে। পুলিশ এ সময় ৫ রাউন্ড গুলি করলে এতে বকুল, মেরাজ ও সুলতান নামে ৩ এলাকাবাসী আহত হন।

শতাধিক ভোট কেন্দ্রে নির্বাচন বন্ধ থাকলেও জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও ডেপুটি কমিশনার ফরীদ আহম্মেদ জানান, তিনটি নির্বাচনী আসনের মোট ৪৭১টি কেন্দ্রের মধ্যে ৪৫ টি কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। এর মধ্যে পীরগাছায় ৩৯, কাউনিয়ায় ১, পীরগঞ্জে ৩,  সদর আসনে ২ টি রয়েছে। দুর্বৃত্তরা বিভিন্ন সেন্টারে আগুন, ব্যালট বক্স ছিনিয়ে নেওয়ায় এসব কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। বাকিগুলোতে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ চলছে। সকালে কুয়াশার কারণে ভোটার কম ছিল। দুপুরে ভোটার উপস্থিতি বাড়ছে।

এআর