আগামিকাল নির্বাচন হলে দেশে গৃহযুদ্ধ শুরু হবে: বি. চৌধুরী

বদরুদ্দোজা চৌধুরি
বিকল্প ধারা বাংলাদেশ এর সভাপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরি

badrudozaআগামিকাল তামাশার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আর এ নির্বাচনের ফলে দেশে গৃহযুদ্ধ শুরু হবে বলে আশংকা প্রকাশ করেছেন বিকল্প ধারার সভাপতি অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের গণঅনশনে এমন আশংকা প্রকাশ করেন তিনি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেন, পুলিশি পাহারায় শেখ হাসিনার মহিলা লীগের গুন্ডা বাহিনী সুপ্রীমকোর্টের আইনজীবীর উপর যে জগণ্য হামলা চালিয়েছে তা ইতিহাসে এক কলঙ্কময় অধ্যায় হয়ে থাকবে।

শেখ হাসিনা মিথ্যা তথ্য দিয়ে জনগণকে নিজের দলে নেওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে এমন উল্লেখ করে তিনি বলেন, হাসিনা দেশকে যে অস্থিরতার দিকে ঠেলে দিচ্ছে তাতে অতি শিগগিরই দেশ ধ্বংসের দিকে ধাবিত হবে।

শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে শ্রমিক-জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেন, আপা মনি আগামি দিনের নির্বাচন বর্জন করেন। দেশে শান্তি আসবে।

এ নির্বচনে ভোটাররা যাবে না যাবে শয়তান এমনটি উল্লেখ করে বঙ্গবীর বলেন, এটি ভোট নয় একটি শয়তানি তামাসা। যেমনটি প্রদ্বীপ নিভে যাওয়ার আগে ধপ ধপ করে জ্বলে ঠিক সে রকমই হাসিনা এখন জ্বলছে। অতি শিগগিরই তার প্রদ্বীপ নিভে যাবে। আগামিকাল যদি নির্বাচন হয় তাহলে এটি হবে ইতিহাসের সবচেয়ে জগণ্যতম একটি দিন।

বাংলার ইতিহাসে ৫ জানুয়ারি একটা দিবস হিসেবে রচিত হয়ে থাকবে উল্লেখ করে ঢাবি সাবেক ভিসি অধ্যাপক এমাজ উদ্দিন বলেন, হাসিনার অন্তরে যদি দেশের প্রতি প্রেম, মমতা, শ্রদ্ধা থাকতো তাহলে এরকম একতরফা নির্বাচন দিতেন না।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনার রাজনীতির ইতিহাসে ৫ জানুয়ারি একটা কালোদাগ হয়ে থাকবে যেটা মুছে ফেলা কখনই সম্ভব হবে না।

জাসদ সভাপতি আ স ম আব্দুর রব বলেন, কালকে নির্বাচন নয় শেখ হাসিনার লাশ দাফন হবে। এখনো চল্লিশা, কুলখানি বাকি আছে। কামান, গোলা, বন্দুক দিয়ে জনগণের আন্দোলন দমানো যাবে না।

আপনারা কেন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করবেন। আপনারা দায়িত্ব পালন থেকে বিরত থাকলে শেখ হাসিনার বাপেরও ক্ষমতা নেই নির্বাচন করার।

রাষ্ট্রপতিকে উদ্দেশ্য করে রব বলেন, আপনি সম্মানী ব্যক্তি। আপনি চাইলে সংসদ বসিয়ে নির্বাচন বাতিল করতে পারেন। এখনও ১১০দিন সময় আছে। দয়া করে আপনি প্রধানমন্ত্রীকে ডেকে এ নির্বাচন বাতিল করতে বলুন।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে রব বলেন, যেসব এলাকায় ভোট হচ্ছে না তাদের ক্ষোভ রয়েছে। আপনি শুধু বেহাইয়া নয় মা কালির মতো আপনার গায়ে রক্ত লেগে আছে।

এ সময় শেখ হাসিনা সুপ্রিমকোর্ট, প্রেসক্লাব ও শিক্ষকদের ওপর আওয়ামী গুন্ডা বাহিনী দিয়ে হামলা করিয়েছেন বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

বিএফইউজে সভাপতি রুহুল আমিন গাজীর সভাপতিত্বে এ সময় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিকল্পধারার  মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নান, ড্যাব মহাসচিব জাহিদ হাসান, ডিইউজে সভাপতি আব্দুল হাই সিকদার, ঢাবি শিক্ষক অধ্যাপক আক্তার খান প্রমুখ।

জেইউ/এসএস